ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে ৬ জেব্রা

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার :

dav

যশোরের শার্শা উপজেলা থেকে উদ্ধার হওয়া ছয়টি আফ্রিকান জেব্রার অবশেষে ঠাঁই হয়েছে কক্সবাজারের চকরিয়ার ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে। ২২ জুন বিকেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কের নির্দিষ্ট বেষ্টনিতে জেব্রাগুলোকে উন্মক্ত করে দেয়া হয়েছে।
ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কের সহকারী ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাজাহারুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, গত ৮ মে শার্শার সাতমাইল গরুরহাট থেকে নয়টি জেব্রা উদ্ধার করে পুলিশ। পরে সেখানে একটি জেব্রা মারা যায়। বাকি আটটি জেব্রা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে গাজীপুরের শ্রীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে নেয়া হয়। আগে থেকে ওই পার্কে ১৪টি জেব্রা ছিল। ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে কোনো জেব্রা না থাকায় প্রধান বন সংরক্ষক শফিউল আলম চৌধুরীর নির্দেশে উদ্ধার হওয়া আটটি জেব্রা থেকে ছয়টি ডুলাহাজারা সাফারি পার্কে হস্তান্তর করা হয়। এর মধ্যে তিনটি মাদী ও তিনটি পুরুষ জেব্রা রয়েছে।
মাজাহারুল ইসলাম চৌধুরী আরও বলেন, দীর্ঘ পথযাত্রায় অনেকটা ক্লান্ত জেব্রাগুলোকে প্রায় ১০০ একর জায়গার ওপর নির্মিত বেষ্টনির মধ্যে উন্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে। একটি ছাড়া অন্যগুলো পুরোই সুস্থ রয়েছে। বিদেশি প্রাণীর মধ্যে এ পার্কে শুধুমাত্র ওয়াইল্ড বিষ্ট ছিল। এ ছাড়াও রয়েছে একটি আফ্রিকানসহ পাঁচটি রয়েল বেঙ্গল টাইগার, হরিণ, হোয়াইট ফেলিকেনসহ কয়েক ধরনের দেশীয় পশু-পাখি। প্রথমবারের মতো পার্কটিতে জেব্রা আসায় দর্শনাথী সংখ্যা বাড়বে বলে আশা করছেন তিনি। ডুলহাজারায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কের সহকারী ভেটেরেনারি সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ছয়টি জেব্রার মধ্যে একটি জেব্রা শারীরিকভাবে দুর্বল রয়েছে। ওই জেব্রাকে বেষ্টনিতে রাখা হলেও নিবিড় পর্যবেক্ষণে আছে। আশা করা যাচ্ছে, জেব্রাটি শিগগির সুস্থ হয়ে উঠবে। এই কর্মকর্তা বলেন, জেব্রা মূলত দলবদ্ধভাবে বসবাস করে। এরা তৃণভোজী প্রাণী। এরা মূলত ঘাস ও ভুসি খেয়ে জীবনধারন করে।

মতামত দিন