বৃষ্টিতে চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়ক যোগাযোগ বন্ধ

টানা বৃষ্টিতে চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়ক যোগাযোগ বন্ধ

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: সোমবার (২ জুলাই) রাত ৮টা থেকে শুরু হওয়া টানা বৃষ্টিতে চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কের রাউজান এলাকার বেশ কিছু অংশ পানিতে তলিয়ে গেছে। ফলে পর্যটন জেলা রাঙামাটির সঙ্গে চট্টগ্রামের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে।

সোমবার (২ জুলাই) সকাল ৯টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে ১২৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সহকারী আবহাওয়াবিদ আব্দুল হান্নান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সোমবার (২ জুলাই) সকাল থেকে চট্টগ্রামে গুড়িগুড়ি বৃষ্টিপাত হলেও, রাত ৮টা থেকে টানা বৃষ্টির রূপ নেয়। এরপর মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত থেকে থেমে কখনো ভারী কখনো মাঝারি বৃষ্টি হচ্ছে।

প্রবল বৃষ্টিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কের রাউজান অংশও পানিতে তলিয়ে গেছে। এতে রাঙামাটির সঙ্গে চট্টগ্রামের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। এছাড়া পাহাড় থেকে নেমে আসা ঢলের পানিও এসে পড়েছে রাউজানের ওই সড়কে। মঙ্গলবার সকাল থেকে ওই সড়কে বড় কোন যানবাহন চলাচল করতে পারছে না। এতে চট্টগ্রাম থেকে পর্যটন নগরী রাঙামাটি কার্যত বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) হাবিবুর রহমান জানান, রাউজানে ব্যাপক আকারে পানির স্রোত এসেছে। সোমবার শেষ রাতের দিকে হঠাৎ করে উজানের ঢল নামে। ফলে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হওয়ার পাশাপাশি বেশ কয়েকটি ইউনিয়ন তলিয়ে গেছে।

এই কর্মকর্তা আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, এভাবে বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে বান্দরবান-চট্টগ্রাম সড়কটিও পানির নিচে তলিয়ে যেতে পারে।

এদিকে পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সহকারী আবহাওয়াবিদ আব্দুল হান্নান জানান, মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে সৃষ্ট এই বৃষ্টিপাত আরও একদিন অব্যাহত থাকতে পারে।

হাইওয়ে পুলিশ রাউজান থানার ওসি আব্দুল করিম জানান, টানা বৃষ্টিতে পাহাড়ি ঢলে রাউজানের বিভিন্ন স্থানে পানিতে রাস্তা তলিয়ে গেছে। এজন্য সকাল থেকে রাঙামাটির সাথে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। অন্যদিকে বৃষ্টির কারণে বরাবরের মতোই চট্টগ্রাম নগরীতে সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতা। শহরের নিম্নাঞ্চল বিশেষত চকবাজার, বাদুর তলা, শোলকবহর আবাসিক এলাকা, মুরাদপুর, ষোলোশহর, বাকলিয়া, আগ্রাবাদ, সিডিএ, হালিশহর, বহদ্দারহাটসহ বিভিন্ন স্থানের বাসাবাড়ি, অফিস, দোকান, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পানি ঢুকে গেছে। ফলে সকাল থেকে স্কুল, কলেজ ও অফিসগামী মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

মতামত দিন