আমি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হলে মসজিদ,মন্দির, গীর্জা কে মিউজিয়াম বানাইতাম, ম’দ জু’য়া সব বৈধ করতাম: তসলিমা নাসরিন

ভারতে নির্বাসিত বাংলাদেশের বিতর্কিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন প্রধানমন্ত্রী হলে কি কি করতেন তার ফিরিস্তি দিয়েছেন ফেসবুকে। গতকাল ২৮ সেপ্টেম্বর শনিবার রাতে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে বেশ কিছু কাজের তালিকা দিয়ে তিনি লিখেছেন-আপাতত ২০টা। হজম করো। পরে আরও আসিতেছে।

তসলিমা নাসরিনের ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

১। সংবিধান থেইকা বিসমিল্লাহ বাদ দিতাম। রাষ্ট্র ধর্ম বাদ দিতাম। ২। নারী পুরুষের সমানাধিকারের ভিত্তিতে অভিন্ন দেওয়ানী বিধি করতাম। কোনও কোরানের আইন, কোনও মনুর আইন, মোদ্দা কথা কোনও ধর্মীয় আইন চলবে না। ৩। মন্দির, মসজিদ, গির্জা মির্জা সবগুলারে মিউজিয়াম বানাইতাম। ধর্ম পালন বাইরে বন্ধ। নামাজ রোজা পুজা মুজা ঘরের ভিতরে কর। ৪। শিক্ষা, প্রাইমারি থেইকা পিএইচডি, বেবাক ফ্রি সবার জন্য।

৫। স্বাস্থ্যসেবা ফ্রি সবার জন্য। বিজ্ঞান ভিত্তিক স্বাস্থ্য সেবা চলবে। কুসংস্কার এবং অবিজ্ঞান ভিত্তিক কবিরাজি, ঝাড়ফুঁক, আয়ুর্বেদ, হোমিও, আকু, মাকু সব নিষিদ্ধ।

৬। পতি’তাবৃত্তি নিষিদ্ধ করতাম। যৌ’ন কর্মের জন্য শরীর বেচতে চাওয়া অপরাধ না, শরীর কিনতে চাওয়া অপরাধ। অসহায় মেয়েদের বাইন্ধ্যা থানায় নিয়া যাওয়া হবে না, দালাল আর খদ্দেরদের নিয়ে যাওয়া হবে। ডিমান্ড থাকলেই সাপ্লাই থাকে। ডিমান্ডটা বন্ধ করতে হবে।

৭। ধনীদের থেইকা হাই ট্যাক্স কাটতাম।
৮। দারিদ্র ঘুচাইতাম। গরিব একটাও থাকবে না দেশে। সবার জন্য অন্ন বস্ত্র বাসস্থানের ব্যবস্থা হবে। ৯। ধর্ম ভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করতাম। জামাতি ইসলামি ইত্যাদি নিষিদ্ধ। ওয়াজ নিষিদ্ধ।
১০। প্রেস ফ্রিডম থাকবে ১০০ ভাগ। আমারে যত ইচ্ছা গালাগালি করতে চাও করো। বাধা নাই। বাক স্বাধীনতা ১০০ ভাগ।

১১। আমারে তেলানি চলবে না। আমার পিছে ঘুরাঘুরি কইরা সুবিধা আদায়ের কোনও সুযোগ নাই। দুর্নীতি মূর্নীতি চলবে না।
১২। ম’দ জু’য়া সব বৈধ, হাই ট্যাক্স দিতে হবে। গরু ছাগল ভেড়া শুয়োর, মোষ , হাঁস মুরগি, খরগোস ইত্যাদি খাদ্য হিসাবে চাষ করো, স্টান কইরা স্লটার করো, খাও।

১৩। সমুদ্র নদী পুকুর নোংরা করতে দিতাম না, আবর্জনা ফালাইতে দিতাম না। মাছের চাষ করো, মাছ খাও। নদী সমুদ্র খালি যেন না হয়। ১৪। দুইডা সাবমেরিন বেইচা পাবলিক ট্রান্সপোর্ট উন্নত করতাম। বড়লুকি দেখানি বন্ধ করতাম। গাড়ি কেনার হিড়িক কমাইতাম। গাড়ি পার্কিং এ দামি টিকিটের ব্যবস্থা করতাম।

১৫। বাইসাইকেল লেইন বানাইতাম রাস্তার ধার ঘেইষা। বাইসাইকেল চালাইলে স্বাস্থ ভালা থাকবো, পলুশান কমবো। ১৬। বোরখা নিষিদ্ধ করতাম। সিকিউরিটি ইস্যুতে। ১৭। বিজ্ঞানের পরীক্ষা নিরিক্ষাতে অঢেল টাকা ঢালতাম।

১৮। খালি গার্মেন্টস না, নানা জাতের ইন্ডাস্ট্রি বানাইতাম।
১৯। আর্মি উঠাইয়া দিতাম। আর্মির দরকার নাই দেশে।

২০। জেলগুলারে করতাম সংশোধনী কেন্দ্র। মৃ’ত্যু দ’ণ্ড নিষিদ্ধ করতাম।

মতামত দিন