অন্ধকার জগতে ভবিষ্যত নিয়ে দিশেহারা রোহিঙ্গারা

জসিম সিদ্দিকী:একবার সুযোগ পেলে, ফিরে যাবো বার্মায় বললেন বিএ বিএড পাশ করা শিক্ষক মোহাম্মদ রহিম (৫০)। কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা শিবিরের একটি ছোট্ট গলিতে তার বাসবাস। সেখানে তিনি পান-সুপারি বিক্রি করেন। তিনি বলেন, আমার প্রথম প্রয়োজন ন্যায়বিচার। ১৯৮০ দশকে তৎকালীন মিয়ানমারের সেনা শাসিত জান্তা সরকার এক আইনের বলে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব কেড়ে নেয়। কয়েক প্রজন্ম ধরে রাখাইনে বসবাস করে এলেও তাদেরকে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া অবৈধ অভিবাসী বলে চিহ্নিত করে চালানো হয় কাঠামোবদ্ধ সেনা প্রচারণা। ধাপে ধাপে সেখানকার মানুষদের মাঝে রোহিঙ্গা বিদ্বেষী মনোভাব গড়ে তোলা হয়। সর্বশেষ গত বছর নিরাপত্তা চৌকিতে হামলার পর মিয়ানমার সেনাবাহিনী রাখাইনে সহিংসতা জোরালো করলে বাংলাদেশ পালিয়ে আসে লাখ লাখ রোহিঙ্গা।

সহিংস দমন অভিযানের ১১ মাস পর বাংলাদেশের ক্যাম্পগুলোতে বসবাসরত উদ্বাস্তুরা এখন তাদের ভবিষ্যত নিয়ে ভাবছে। যদিও তারা মিয়ানমারের নৃশংসতা থেকে পালিয়ে এসে এখন বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। খাদ্য ও চিকিৎসা সেবা পাচ্ছে, কিন্তু অনেকেই বাড়ি ফেরা নিয়ে কথা বলছে।

তিনি আরও বলেন, আন্তর্জাতিক চাপে এসব রোহিঙ্গাকে ফেরাতে গত বছরের নভেম্বরে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করলেও এখনও একজন রোহিঙ্গাকেও ফিরিয়ে নেয়নি মায়ানমার। এমন বাস্তবতায় আন্তর্জাতিক চাপের মুখে গত মে মাসের শেষ নাগাদ প্রত্যাবাসন নিশ্চিতে মিয়ানমার ও জাতিসংঘের মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। চুক্তিটি গত ২৯ জুন ফেসবুকে ফাঁস হয়ে যায়। এরপর থেকে রোহিঙ্গা নেতারা তা প্রত্যাখ্যান করে আসছে। তারা বলছে, এতে রোহিঙ্গাদের জন্য নাগরিকত্বের নিশ্চিয়তা দেয়া হয়নি। মিয়ানমারের ১৯৮২ সালের জাতীয় আইনের আওতায় তারা নাগরিক হিসেবে স্বীকৃত নয়।

উখিয়ার ক্যাম্পগুলোতে তারা ফিরে যেতে রোহিঙ্গারা কেন আগ্রহী তা জানতে চাইলে নুর বেগম (২২) বলেন, আমি থাকেন একটি ছোট্ট ঘরে। সাথে থাকেন তার ভগ্নিপতি। তিনি বলেন, আমি আমার ভবিষ্যৎ জানি না। আমি শুনেছি, আমাদেরকে দেশে ছুড়ে ফেলার কথা হচ্ছে। কিন্তু আমার কাছে কোনো নথিপত্র নেই। স্বামীকে মিয়ানমারে হত্যা করা হয়েছে। তার নবজাতক সন্তানকেও তিনি বাঁচাতে পারেননি। নূর বেগমের ৮ বছর বয়সে স্কুল ত্যাগ করেছিলো। তার সামনে ভবিষ্যত বলে কিছু নেই। তবে তিনি আশা করছেন, তার ছেলে হয়তো পড়াশোনা করতে পারবে।

তিনি বলেন, তাকে স্কুলে পাঠানোর জন্যই আমি ফিরতে চাই। আশা করি, একদিন সে বিশ্ববিদ্যালয়ে যেতে পারবে। সন্তানরা স্কুলে যেতে না পারার কারণে অনেকেই মিয়ানমারে ফিরে যেতে আগ্রহী।

নাসিমা (৪৭) নামের এক নারী, তিনি ৫ সন্তানের মা, বলেন, আমরা এখনো কোনোমতে টিকে আছি। আমি চাই, আমার সন্তানেরা যেন পড়াশোনা করতে পারে।

এদিকে শিবিরগুলোতে বসবাসকারী ৭ লাখ লোকের মধ্যে প্রায় অর্ধেকই শিশু। তাদেরকে বাংলাদেশের স্কুলে ভর্তি হতে দেয়া হয়নি। আবার মিয়ানমারও তাদের জাতীয় কারিকুলাম ক্যাম্পগুলোতে চালানো নিষিদ্ধ করেছে।

ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রামে ফিল্ড মনিটরিং এ কর্মরত জয়নাল আবেদীন বলেন, প্রতি চারটি রোহিঙ্গা ঘরে তিনজনই শিক্ষার অধিকার থেকে বঞ্চিত। একটি প্রজন্ম হারিয়ে যাওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে। এর মানে হলো, ক্যাম্পে ৩ লাখ ২৭ হাজার রোহিঙ্গা শিশু শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

বিভিন্ন এনজিও ও জাতিসংঘ পরিচালিত অস্থায়ী স্কুলগুলোতে প্রায় ১ লাখ ৩৭ হাজার রোহিঙ্গা শিশু ভর্তি হলেও তারা আশঙ্কা করছে, তাদের শিক্ষাকে স্বীকৃতি দেয়া হবে না।

বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের জি ব্লকের নুরুল আমিন বলেন, এখানকার শিক্ষা কেন্দ্রগুলো সত্যিকারের স্কুল না। এগুলোতে দুই ঘণ্টার জন্য মাত্র পড়াশোনা করানো হয়।

তিনি বলেন, আমি চাই আমার সন্তানেরা স্কুলে গিয়ে যথাযথ শিক্ষা লাভ করুক। তারা যদি আমাদের স্বাভাবিক জীবনের প্রতিশ্রুতি দেয় এবং আমাদের হত্যা না করার প্রতিশ্রুতি দেয়, তবে আমি আমার পরিবারকে নিয়ে মিয়ানমারে ফিরিয়ে যাবো। তবে এখন আমি শঙ্কিত।

সুত্র জানিয়েছে, মিয়ানমারের রাখাইনের শিক্ষা ব্যবস্থাও করুণ দশায় রয়েছে। রাখাইনের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে মুসলিম ছাত্রদের ভর্তি হওয়া অসম্ভব ব্যাপার। তাছাড়া তাদের চলাচলের ওপর বিধি-নিষেধ রয়েছে। আর কেউ যদি ভর্তি হতেও পারে, তবে তাকে অনেক অর্থ দিতে হয়।

এ নিয়ে ৩২ বছরের রোহিঙ্গা হামিদা বলেন, আমরা সন্তানদের শিক্ষার ব্যয়ভার বহন করতে পারি না। তারপরও আমি চাই না, আমার সন্তানদের জীবন ধ্বংস হয়ে যাক। তারা বড় হচ্ছে, তাদের শিক্ষার প্রয়োজন। তবে মিয়ানমারে তাদের কখনো স্কুলে ভর্তি নেয়া হবে না। তাই চিন্তার শেষ নেই আমাদের।

তিনি বলেন, এখানে আমরা বিদেশী। মিয়ানমার আমাদের আবাসস্থল। তবে সামরিক বাহিনী আমাদের জীবন ধ্বংস করে দিয়েছে। আমার আর বাড়ি বলে কিছু নেই। তবে তারা যদি আমার জমি আর মূল্যবান সামগ্রী ফিরিয়ে দেয়, শান্তিতে বাস করার সুযোগ দেয়, তবে আমি অবশ্যই ফিরে যাব।

জাতিসংঘ প্রত্যাবর্তন চুক্তিতে সাবেক বাড়িঘর ফিরিয়ে দেয়ার নিশ্চয়তা দেয়া হয়নি। ফাঁস হওয়া নথিতে দেখা যায়, তাদেরকে তাদের বাড়িঘরে কিংবা নিকটতম নিরাপদ স্থানে ফিরিয়ে নেয়া হবে। অনেকে আশঙ্কা করছে, তাদেরকে হয়তো স্থায়ী কোনো ক্যাম্পে রাখা হবে।

সাবেক শিক্ষক ঈসমাইল বলেন, তারা আমাদের মা-বোনদের ধর্ষণ করেছে। আমাদেরকে ধর্ম পালন করতে দেয়নি। আমরা ধার্মিক মানুষ, আমরা আমাদের ধর্ম অনুসরণ করতে চাই। আমাদের প্রয়োজন জাতীয়তা। তারা যদি এ ২টি অধিকার দেয়, তবে আমি এখনই সোজা ফিরে যাব।

ক্যাম্পগুলো ঘুরে একাধিক রোহিঙ্গা নেতাদের সাথেও কথা বলে জানাগেছে, মায়ানমার যদি রোহিঙ্গাদের অধিকার  সুরক্ষা প্রদান করে এবং মিয়ানমারের নাগরিক হিসেবে স্বীকার করে নেয় তাহলে  রোহিঙ্গারা সবাই ফিরে যেতে রাজি।

মতামত দিন